বেস্ট লিনাক্স সফটওয়্যার প্যাক – নতুন লিনাক্স ইউজার দের জন্য!

আপনি কি নতুন উইন্ডোজ থেকে লিনাক্সে মুভ করেছেন? হুম তাহলে আজকের আর্টিকেল আপনার জন্যই!
বেস্ট লিনাক্স সফটওয়্যার প্যাক - নতুন লিনাক্স ইউজার দের জন্য!

লিনাক্স অনেকে তো নাম শুনেই ভয় পেয়ে থাকে! লিনাক্স কি, কিভাবে ব্যাবহার করতে হয়! লিনাক্স মানেই কোডিং ইত্যাদি ইত্যাদি। তাহলে ব্রাদার আমি আপনাকে উদ্দেশ্য করেই বলছি – ইউ আর টোটালি রং! লিনাক্স মানেই স্বাধীনতা আপনার যা ইচ্ছা যেভাবে ইচ্ছা আপনি সেভাইবেই আপনার লিনাক্স ডিস্ট্র কে কাস্টোমাইজ করতে তো পারছেন’ই। সাথে আপনি পাচ্ছেন মারাত্মক রকম স্টাবেলিটি – যা আপনার লিনাক্স ইউজ করার এক্সপ্রিয়ান্স কে চরম মাত্রাই পৌঁছে দিবে!

বাট, ওয়েট সব কিছু ঠিক থাকলেও নতুন লিনাক্স ইউজার দের জন্য লিনাক্স মানেই কিন্তু হয়ে যায়, মাথার চুল ছেড়ার নাম, হি,হি তো ব্রো আপনি যদি একজন নতুন লিনাক্স ইউজার হয়ে থাকেন তাহলে আপনার সাথে আজ যে কয়েকটি “লিনাক্স সফটওয়্যার” এর কথা বলব এগুলা আপনার মাস্ট ইউজ করে দেখা উচিৎ। তাহলে দেখবেন উইন্ডোজ থেকে আপনার মন উঠে যাবে। এবং আপনি লিনাক্স কে মারাত্মক ভাবে ভালবেসে ফেলবেন। ওকে তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক বেস্ট লিনাক্স সফটওয়্যার প্যাক সম্পর্কে।

ইন্টারনেট ব্রাউজার

শুরুটা ইন্টারনেট ব্রাউজার দিয়েই করা যাক, লিনাক্সে অনেক গুলি ডিস্ট্র’তে বিল্ড ইন ভাবেই ‘ফায়ারফক্স’ ইন্টিগ্রেটেড করা থাকে। অর্থাৎ অনেক গুলা লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশনে ডিফল্ট ইন্টারনেট ব্রাউজার হিসাবে ফায়ারফক্স কে বিল্ড ইন ভাবে দেওয়া থাকে। তবে আমি মোটেও ফায়ারফক্স এর প্রেমী নয়, বরং ফায়ারফক্স আমার কাছে ভীষণ রকম বাজে মনে হয়।

এবং আমার মতই আপনার ও যদি ফায়ারফক্স ইন্টারনেট ব্রাউজার হিসাবে পছন্দের তালিকায় না থাকে, তাহলে আপনি গুগল ক্রোম এর সাথে যেতে পারেন। না, না ভয় পাবেন লিনাক্স এর গুগল ক্রোম উইন্ডোজ এর ক্রোম এর মত ‘অত বেশি রিসোর্স হাংরি’ না, ফলে মারাত্মক বেটার পারফর্মেন্স এর সাথে আপনি লিনাক্সে গুগল ক্রোম ব্যাবহার করতে পারেন।

আবার, আপনি যদি না চান আপনার প্রাইভেসি গুগল এর সাথে আপনি ভাগাভাগি করবেন না – তাহলে আপনার জন্য সত্যি গুড চয়েজ হতে পারে ব্রেভ ব্রাউজার। এবং বেশ কিছুটা ইন্টারেস্টিং থিং হচ্ছে আমিও কিন্তু বর্তমানে ব্রেভ ব্রাউজার ইউজ করি। ব্রেভ ব্রাউজারের ডিফল্ট বিল্ড ইন অ্যাড ব্লকার, ওহ আই জাস্ট লাভ ইট।

এবং হ্যাঁ, আপনি যদি চিন্তা করে থাকেন – ব্রেভ ব্রাউজারে কি গুগল ক্রমে যত-যত থিমস এক্সটেনশন আছে সেগুলা পাওয়া যাবে? হুম গুগল ক্রমের সব কিছুই আপনি ব্রেভ ব্রাউজারে পেয়ে যাবেন। কারন, ব্রেভ ব্রাউজার গুগল ক্রোম এর ওপেন সোর্স ভার্শন ক্রোমিয়াম নির্ভর ওয়েব ব্রাউজার। ফলে আপনি গুগল ক্রম থেকে যা কিছু এক্সপেক্ট করতে পারেন ব্রেভ ব্রাউজারে তার সব কিছু পেয়ে যাবেন! মোট কথা আপনি যদি আপনার প্রাইভেসি ও নিরাপদ ইন্টানেট ব্যাবহার করতে চান – তাহলে ব্রেভ ব্রাউজার এক কথায় জাস্ট গুড, জাস্ট টু গুড।

মিডিয়া প্লেয়ার

কি, মশাই আপনি কি উইন্ডোজে মিডিয়া প্লেয়ার এর জন্য QQPlayer, বা KMPlayer, PotPlayer ইউজ করতেন? না আমি VLC মিডিয়া প্লেয়ার এর কথা ভুলে যাইনি। একটু খানি পরে আসছি এই গল্পে, প্রায় অনেকেই দেখি উইন্ডোজে মিডিয়া প্লেয়ার হিসাবে এসব মিডিয়া প্লায়ার ইউজ করে। কিন্তু হঠাৎ করে উইন্ডোজ থেকে লিনাক্সে মুভ করার পর বুজতে পারে না যে কোন মিডিয়া প্লেয়ার ইউজ করবে বা করাটা ঠিক হবে!

ওয়েল, এখন একটু VLC মিডিয়া প্লেয়ার এর গল্পে আসা যাক, অনেকে’ই উইন্ডোজে VLC ইউজ করে না তার রহস্য হচ্ছে, VLC মিডিয়া প্লেয়ার অন্যান্য মিডিয়া প্লেয়ার থেকে বেশ কিছুটা রিসোর্স হাংরি। ফলে উইন্ডোজে VLC ইউজ করা অনেকার কাছেই প্যাঁড়া দায়ক হতে পারে। হ্যাঁ, ভাই আমি জানি VLC প্লেয়ার উইন্ডোজে মোটেই স্লো না, কিন্তু আমি কথা বলছি লেটেস্ট VLC নিয়ে ওই পিরামিডের সময়ের VLC নিয়ে না, বা ক্রাক VLC লাইট নিয়েও না।

আমি জানি যারা লো ইন্ড সিস্টেমে উইন্ডোজ + লেটেস্ট VLC ইউজ করছেন – তাদের মাঝে মাঝেই মাথার চুল ছিড়তে ইচ্ছা হয়! বাট আর চিন্তা নয় আপনি লিনাক্সে মুভ করার পর আপনার সেই লো ইন্ড সিস্টেমে আরামসে VLC ইউজ করতে পারবেন। না হাং করবে, না কোথাও বাজে পারফর্মেন্স পাবেন।

আচ্ছা আমি VLC এতো- এতো গুনগান কেন করছি? ওয়েল, তার কারন VLC হচ্ছে এক মাত্র এমন মিডিয়া প্লেয়ার যা কেন কোন ফরমেট এর ভিডিও অনায়াসে প্লে করতে সক্ষম। তো আপনি যদি নতুন উইন্ডোজ থেকে লিনাক্সে মুভ করে থাকেন তাহলে একবার হলেও VLC ট্রাই করে দেখুন, যদি পারফর্মেন্স নিয়ে সেটিস্ফাই না হন – তাহলে এসে এখানে কমেন্ট করে আমাকে বইলেন।

ডাউনলোড ম্যানেজার

ওহ, আইডিএম এর থেকে বেস্ট ডাউনলোড ম্যানেজার আর দ্বিতীয় আছে নাকি? হি,হি ব্রাদার কিসের আইডিএম – আইডিএম থেকেও বেটার ডাউনলোড ম্যানেজার আছে লিনাক্সে। এবং তাও সম্পূর্ণ ফ্রী, মানে আপনাকে আইডিএম মত ক্রাক ভার্শন খুজতে হবে না।

আচ্ছা ব্রো সব কিছু বুজলাম। কিন্তু আইডিয়াম যেমন মাল্টি কানেশন করে ডাউনলোড করে থাকে, লিনাক্সে কি তেমন কোন সফটওয়্যার বা অ্যাপস আছে? হুম আছে ব্রো এবং তার নাম হচ্ছে ইউগেট। এক কথায় আপনি উইন্ডোজ আইডিএমে যা কিছু পান তার সব কিছুই এখানে পাবেন- এবং এভাবেও বলা যায় আপনি আইডিএম থেকে আরও বেটার কিছু পাবেন ইউগেটে, সো আপনি যদি একজন ডাউনলোড প্রেমী হয়ে থাকেন তাহলে গো উইথ ইউগেট ডাউনলোড ম্যানেজার।

স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস

না উইন্ডোজ এর তুলনায় লিনাক্সে এতো এতো চয়েজ নাই, যেমন উইন্ডোজে অনেক রকম স্ক্রিন ক্যাপচার টুলস পাওয়া যায়। তার উপর উইন্ডোজে বিন্ড ইন ভাবেই স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস দেওয়া থাকে। এবং হ্যাঁ লিনাক্সেও কিন্তু বিল্ড ইন ভাবেই স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস দেওয়া থাকে। বাট সেখানেও গল্প কিছুটা উইন্ডোজ এর মত। যেমন আপনি বলুন তো আপনি কি উইন্ডোজের ডিফল্ট স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস ইউজ করেন? না মোটেও না।

বরং আপনি ফাস্ট স্টোন ক্যাপচার, জিং ক্যাপচার, শেয়ার এক্স, গ্রীন শর্ট, এই জাতীয় টুলস ইউজ করে থাকেন। বাট আসল গল্প হচ্ছে উইন্ডোজে সকল স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস কিন্তু ফ্রী না। হয় আপনাকে টাকা দিয়ে কিনে ব্যাবহার করতে হবে। (যা আমরা কেউ’ই করি না) আর না হয় ক্রাক ভার্শন ইউজ করতে হবে।

কিন্তু লিনাক্সে সম্পূর্ণ গল্প একদম ভিন্ন, আপনি মারাত্মক রকম গুড কোয়ালিটির স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস পেয়ে যাবেন এবং তাও সেটা সম্পূর্ণ ফ্রীতে, আন্ড ইয়া আই লাভ দা থিং। আর মুলত এ জন্যই লিনাক্স আমার এতো পছন্দের – লিনাক্সের বেস্ট স্ক্রীন ক্যাপচার টুলস হচ্ছে শুটার, আপনি একবার ট্রাই করেন দেখুন না, দেখবেন আপনি উইন্ডোজে সকল স্ক্রীন ক্যাপচার টুলসে যা কিছু পেতেন তার সব কিছুই এখানে উপস্থিত আছে, এবং এই সকল কিছু পাচ্ছেন ফ্রীতে।

স্ক্রিন রেকর্ডার টুলস

যেখানে লিনাক্স মানেই অনেকের কাছে ঝামেলা – সেখানে আবার লিনাক্সে স্ক্রিন রেকর্ডার টুলস? অনেকে তো এগুলা চিন্তাই করতে পারে না যে লিনাক্সে এতো এতো কিছু করাও সম্বব। দেখুন ব্রো আমি এখানে একদম নতুন লিনাক্স ইউজার দের কথা বলছি, আমি এমন অনেক কেই দেখেছি তারা চিন্তাও করতে পারে না যে লিনাক্সে এতো কিছু করা পসেবল। সো এটা লেখা আমার সেই সকল ভাই বোনেদের জন্য। নট ফর লিনাক্স এক্সপার্ট পিপল।

তো যাই হোক উইন্ডোজে কিন্তু স্ক্রিন রেকর্ডার টুলস এর অভাব নেই, অর্থাৎ নাম বলেও শেষ করা পসেবল হয়ে উঠবে না, বাট মোরাল গল্প এখানে না – মোরাল গল্প হচ্ছে আপনি উইন্ডোজ থেকে জাস্ট বেটার স্ক্রিন রেকর্ডার টুলস পেয়ে যাবেন লিনাক্সে।

হ্যাঁ ভাই আমি OBS studio কথাই বলছি, উফ কি নেই এতে, এক কথাই একের মাঝে সব কিছু – এবং এই স্ক্রিন রেকর্ডার টুলস এর বিশেষ যে ভুমিকা টা আছে তা হচ্ছে, লাইভ স্ট্রিমিং! ইয়া আপনি যদি একজন ইউটিউব লাইভ স্ট্রিমিং গেমার হয়ে থাকেন বা পরিকল্পনা করছেন যে ইউটিউবে গেমিং চ্যানেল খুলে লাইভ লাইভ স্ট্রিমিং করবেন, তাহলে এক কথাই আপনার জন্যই OBS studio.

সিস্টেম ক্লিনিং টুলস

আপনি এজকন পুরাতন উইন্ডোজ ইউজার, আর আপনি CCleaner এর নাম শুনেন নাই তা কিভাবে হতে পারে? ইভেন হয়তবা আপনি এখনও আপনার উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে CCleaner ইউজ করছেন সিস্টেম ক্লিন করবার জন্য! বাট আপনি লিনাক্সে মুভ করে দেখলেন যে লিনাক্সে এরকম কিছুই নেই।

আছে কিন্তু তা অন্য রাস্তা “WINE” দিয়ে চালাতে হবে। WINE কি, কিভাবে কাজ করে এই টপিক টা অন্য কোন আর্টিকেলর জন্য না হয় আজ তুলে রাখলাম। এখন আসি লিনাক্সে সিস্টেম ক্লিনিং টুলস এর বিষয়ে! লিনাক্সে কি ভাল কোন সিস্টেম ক্লিনিং টুলস নাই?

কে বলছে নাই, আপনি CCleaner সফটওয়্যার থেকে আরও বেশি কিছু পাবেন লিনাক্সে – যেখানে CCleaner ফ্রীতে পাওয়া যায় না, CCleaner ফুল ভার্শন ইউজ করতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই টাকা ঢালতে হবে। বাট লিনাক্সের সাথে কখনও এরকম কোন গল্প নাই। লিনাক্স মানেই সব কিছু ফ্রী ও ওপেন সোর্স। এবং এ জন্যই আমি লিনাক্স এতো বেশি ভালবাসি!

তো যাই হোক এখন কাজের কথাই আসি, লিনক্সে সিস্টেম ক্লিন করবার জন্য আপনি Stacer ইউজ করতে পারেন, ব্রাদার বিলিভ,মি Stacer জাস্ট বেটার দেন CCleaner জাস্ট বেটার।

নোটপ্যাড এডিটর

বর্তমানে নোটপ্যাড এডিটর এর কথা আসলেই সর্বপ্রথম যার নাম মাথায় আসে তিনি হচ্ছে Notepad++ কিন্তু সেটা তো উইন্ডোজে, লিনাক্সের জন্য কি অপশন আছে? ওয়েল, নোটপ্যাড এডিটর এর জন্য লিনাক্সে হাজারও অপশন আছে, বাট সেগুলার সাথে আপনি কমফোর্টেবল না।

আপনি লিনাক্স ও ইউজ করবেন সাথে Notepad++ ও ইউজ করবেন! আবার তার জন্য আপনি “WINE” ও ইউজ করবেন না তাহলে এখন উপায়? উপায় আছে ব্রো আপনি লিনাক্সে Nodepadqq ইউজ করতে পারেন। একদম হুবহু কপি Notepad++ এর, এবং মজার বিষয় হচ্ছে Notepad++ এ যা কিছু পাবেন তার সব কিছুই কিন্তু NodepadQQ তে পেয়ে যাবেন। তো আর কি চাই বলুন তাহলে?

পরিশেষে

তো সব মিলিয়ে এই ছিল বেস্ট লিনাক্স প্যাক, নতুন লিনাক্স ইউজার দের জন্য – ও আমি তো ভুলেই গিছিলাম অফিস স্যুট এর কথা, আপনি লিনাক্সে মাইক্রোসফট এর অফিস স্যুট তো ব্যাবহার করতে পারবেন না ঠিক’ই – কিন্তু আপনি মাইক্রোসফট এর অফিস স্যুট এর অল্টারনেটিভ হিসাবে LibreOffice বা WPS Office ব্যাবহার করে দেখতে পারেন।

এ ছাড়া আর একটা বিষয় একটু পরিস্কার করে বলা উচিৎ, অনেকে বলতে পারেন ব্রাদার লিনাক্সে তো হাজারো সফটওয়্যার আছে তাহলে আমি কেন আজ এই সফটওয়্যার গুলির কথাই বললাম? ওয়েল, তার উত্তর হচ্ছে আজকের আর্টিকেল টি একদম নতুন লিনাক্স ইউজার দের টার্গেট করে লেখা হয়েছে। এবং আমরা মনে করি নতুন লিনাক্স ইউজার দের জন্য এই সফটওয়্যার গুলিই যথেষ্ট।

ইমেজ ক্রেডিট; By Mikaela Shannon Via Unsplash

আকাশ গোলদার
আপনিও কি আমার মত টেক পোকা? আপনারও কি নতুন নতুন টেকনোলজি বিষয়ে জানতে ভালো লাগে? তাহলে বন্ধু আপনি একদম সঠিক জায়গাতে এসেছেন, কেননা আমি এখানে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন টেক বিষয় গুলি নিয়ে আলোচনা করি, এবং টেকনোলজির জটিল টার্ম গুলিকে আপনাদের সামনে জলের মত সহজ করে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি।