2020 থেকে ব্লগিং শুরু করতে চান? কিভাবে শুরু করবেন এবং কি কি করনীয়?

2020-থেকে-ব্লগিং-শুরু-করতে-চান-কিভাবে-শুরু-করবেন-এবং-কি-কি-করনীয়

২০২০ থেকে ব্লগিং শুরু করতে চান? কিভাবে শুরু করবেন বুজতে পারছেন না? বা এখন এই সময় থেকে ব্লগিং শুরু করলে কেমন হবে এটা ভেবে ভেবে অনেক চিন্তিত আপনি?

ওয়েল আপনি তাহলে একদম ঠিক জায়গাতেই এসেছেন আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনার সাথে শেয়ার করব ২০২০ থেকে ব্লগিং শুরু করলে কি হতে পারে বা এই সময় কিভাবে ব্লগিং করতে হবে।

ওকে তাহলে চলুন এবার মুল আর্টিকেলর দিকে মুভ করা যাক।

২০২০ থেকে ব্লগিং শুরু করতে চান?

ওয়েল আপনি একদম সঠিক সময় নির্বাচন করেছেন ভাই। মানে এই সময় এর মত ভাল সময় আর হতে পারে না।

আপনি নিশ্চিন্তে এখন ব্লগিং শুরু করে দিতে পারেন, এখন ব্লগিং শুরু করলে আপনাকে আর পিছে ফিরে তাকাতে হবে না।

তবে হ্যাঁ, এখন ব্লগিং শুরু করলে কিন্তু সেই সাবেক আমলের মত করে ব্লগিং করলে হবে না, অনেক বিষয়ে ধ্যান রাখতে হবে আপনাকে, কেবল তবেই আপনি এই সময়ে ব্লগিং করে টিকে থাকতে পারবেন।

এখান থেকে পাঁচ সাত বছর আগের কথাই চিন্তা করুন তখন ইন্টারনেট ই ঠিক মত ছিল না আমাদের দেশে।

ছিল তবে অতটাও সহজলভ্য ছিল না।

আর এখন দেখেন আমাদের সবার হাতে হাতে মোবাইল ফোন এবং আমরা কম বেশি প্রায় সবাই এখন ইন্টারনেট এর সাথে কানেক্টেড।

আর এখন যে পরিমানের তথ্য ভাণ্ডার এই ইন্টারনেটে পাওয়া যায়, তা আগে আপনার আমার কল্পনার বাইরে ছিল।

তাই আমার মতে ব্লগিং করার জন্য একদম আদর্শ সময় এখনই। আপনি চাইলেই আপনার হাতের মুঠোফোন ব্যবহার করে পৃথিবীর প্রায় সকল তথ্য এক জায়গায় করে ফেলতে পারবেন।

আর আপনি সেই তথ্য কে কাজে লাগিয়ে শুরু করে দিন না ভাই, কে আটকাবে আপনাকে?

তবে হ্যাঁ, আমার উপরের কথা শুনে আপনার মনে হতে পারে ও তাহলে তো ব্লগিং করা আসলেই কোন ব্যাপার না।

না ভাই এতটাও সহজ না, আবার খুব কঠিন কিছুও না।

আপনি যদি কিছু বিষয়ে ধ্যান রেখে ব্লগিং শুরু করেন, বা কিছু বিষয় মাথায় রেখে ব্লগিং করতে পারেন তবে অবশ্যই আপনি ব্লগিং এ ভাল কিছু করতে পারবেন।

এখন ব্লগিং শুরু করলে কি কি বিষয়ে ধ্যান রাখতে হবে?

কপি পেস্ট করা যাবে না

আপনি যদি কপি পেস্ট করার চিন্তা ভাবনা থেকে ব্লগিং শুরু করার কথা ভেবে থাকেন তাহলে আমি আপনাকে বলব ব্লগিং আপনার জন্য না এবং আপনি ব্লগিং করতেই পারবেন না।

আপনার চিন্তা ভাবনা শুদ্ধ থাকতে হবে, এবং নিজে থেকে কিছু করতে হবে।

অন্যকে দেখে তার মত করে ব্লগিং করা যাবে না আপনাকে আপনার মত করে ব্লগিং করতে হবে।

আপনাকে আপনার নিজের মত করে কন্টেন্ট তৈরি করতে হবে।

সব সময় চেষ্টা করতে হবে, নিজে থেকে কিছু তৈরি করা। অর্থাৎ কাউকে কপি না করে অন্য ব্লগের আর্টিকেল কপি না করে নিজে থেকে আইডিয়া বের করে আর্টিকেল লেখা।

হুবহু কাউকে কপি না করা

আপনার একটি ব্লগ অনেক বেশি ভাল লাগে, এখন সেই ব্লগ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে আপনিও একটি ব্লগ করতে চান।

ওকে যে কথা সেই কাজ আপনি ব্লগিং করেন কোন প্রবলেম নেই।

তবে প্রবলেম শুরু হবে যখন আপনি হুবহু আপনার কাঙ্খিত পছেন্দের ব্লগ এর সব কিছু কপি মেরে দিবেন।

মানে আর একটু বুঝিয়ে বলছি, আপনি আপনার কাঙ্খিত পছেন্দের ব্লগ এর মত লুক আপনার ব্লগে দিতে চান, এবং আপনি আপনার পছেন্দের ব্লগ এর লুক থেকে শুরু করে অই ব্লগ এর থিম সহ সব কিছু কপি করে আপনার পছেন্দের ব্লগ এর মত নিজের ব্লগ কে তৈরি করে নিলেন।

না এই ভুল টা মোটেও করবেন না, এইটা ভুল টা আপনার ব্লগিং কারিয়ারের সব থেকে বড় ভুল হতে পারে।

সব সময় চেস্টা করুন আপনার ব্লগ এর লুক অন্যদের থেকে ভিন্ন ভাবে তৈরি করতে।

এতে করে আপনার ব্লগ এর ভাল একটি ইম্প্রেশন তৈরি হবে গুগল এর চোখে, এবং গুগল বুজতে পারবে যে আপনার কাজের একটা নিজস্বতা আছে।

আপনার ব্লগের লুক যদি কিছুটা ভিন্ন হয় তাহলে আপনার ব্লগের রাইডার দের আপনার ব্লগ সম্পর্কে একটি ভাল ইম্প্রেশন তৈরি হবে।

এবং গুগল সহ আপনার ব্লগের রাইডার রাও বুজতে পারবে যে আপনি ক্রিয়াটিভ কিছু করছেন।

ব্যাকলিঙ্ক এর পিছনে না দৌড়ানো।

মনে রাখবেন আপনার ব্লগ এর কিং আপনার ব্লগের কন্টেন্ট। ব্যাকলিঙ্ক নয় তাই ব্যাকলিঙ্ক বানানোর চক্করে কন্টেন্ট এর দিক থেকে যেন আপনার ফোকাস না সরে যায়।

হ্যাঁ ব্যাকলিঙ্ক ও অনেক প্রয়োজনীয় তবে আপনার সাইট এর কন্টেন্ট যদি ভাল হয় তবে আপনার ব্যাকলিঙ্ক লাগবেনা।

এমনিতেই আপনার ব্লগ রেঙ্ক করবে।

তাই এটাই বলব ভাই ব্যাকলিঙ্ক পিছে না ভেগে আপনার কন্টেন্ট এর দিকে নজর দিন।

এই ছোট ছোট কিছু বিষয় আপনাকে প্রথমেই ধানে রেখে ব্লগিং শুরু করতে হবে। তবেই আপনি ধিরে ধিরে ব্লগিং করতে পারবেন এবং ব্লগিং ফিল্ডে টিকে থাকতে পারবেন।

আপনি কিভাবে ব্লগিং শুরু করবেন এবং কি কি করনীয়?

দেখুন এখন সবাই ব্লগিং ফিল্ডে আসে তার এক মাত্রই কারন ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করা।

এবং এই কাজ টা মোটেও সহজ না, আপনার ইচ্ছা করল আপনি ব্লগিং ফিল্ডে আসলেন এবং টাকা ইনকাম করা শুরু করে দিলেন।

আপনাকে আগে ব্লগিং সম্পর্কে বুজতে হবে জানতে হবে শিখতে হবে তবেই না আপনি ব্লগিং সম্পর্কে পুরনাজ্ঞ একটি ধারনা পাবেন।

তাই ব্লগিং শুরু করার পূর্বে আপনাকে নিজেকে বুজতে হবে, আসলেই আপনি ব্লগিং করতে ইচ্ছুক তো?

নাকি ওই টাকা ইনকাম করার জন্য ব্লগিং করতে চান। দেখুন আপনি যদি শুধু মাত্র টাকা ইনকাম করার জন্য ব্লগিং করতে চান তবে আপনি ব্লগিং করতে পারবেন না।

ব্লগিং ব্যাপার টা আপনার মন থেকে আসা চাই।

আপনাকে বুজতে হবে আপনার কি আসলেই লিখতে ভাল লাগে, বা আপনাকে একটানা লিখতে দিলে আপনি কি অনাবরত লিখে জেতে পারবেন?

হ্যাঁ, আপনার উত্তর যদি হ্যাঁ হয়ে থাকে, তাহলে হ্যাঁ, আপনি ব্লগিং নির্দ্বিধায় শুরু করে দিতে পারেন।

এখন আপনাকে শুধু কিছু দিন ধরে রিসার্চ করতে হবে যে আপনি আসলে কি টপিক নিয়ে ব্লগিং করতে ইচ্ছুক।

বা বলা চলে আপনার কি বিষয়ে লেখা লেখি করতে ভাল লাগে।

ব্যাস আরকি আপনি যদি আইডিয়া পেয়ে জান তাহলে সেই আইডিয়া নিয়ে ব্লগিং শুরু করে দিন।

আরকি এখন এভাবেই আপনি আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ার স্টার্ট করে দিতে পারেন।

আমাদের কিছু কথাঃ দেখুন এই আর্টিকেলে বলা কথা গুলি আমার নিজের এক্সপিরিয়ান্স থেকে আপনার সাথে শেয়ার করেছি।

আমার ব্লগিং এক্সপিরিয়ান্স এই ৩ বছর এর মত। আমি আমার ব্লগিং ক্যারিয়ারে অনেক ভুল করেছি।

আর এ জন্নই আমি চাইনা আমার করা ভুল গুলা আপনিও করেন, তাই আপনাদের সাথে এই আর্টিকেল টি শেয়ার করা। ধন্যবাদ এতখন সাথে থাকার জন্য টা,টা ❤❤

ইমেজ ক্রেডিট; Anete Lūsiņa Via Unsplash

আপনিও কি আমার মত টেক পোকা? আপনারও কি নতুন নতুন টেকনোলজি বিষয়ে জানতে ভালো লাগে? তাহলে বন্ধু আপনি একদম সঠিক জায়গাতে এসেছেন, কেননা আমি এখানে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন টেক বিষয় গুলি নিয়ে আলোচনা করি, এবং টেকনোলজির জটিল টার্ম গুলিকে আপনাদের সামনে জলের মত সহজ করে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *