কম্পিউটারের সামনে দীর্ঘক্ষণ বসে থেকে আমরা নিজেদের ক্ষতি করছি নাতো?

কম্পিউটার

ওয়েল, আপনিও কি অনলাইন ভিত্তিক কোন কাজ করছেন? হুম, আপনিও যদি আমার মত একজন অনলাইন পোকা হয়ে থাকেন। তাহলে অনলাইনে কাজ না করলেও দীর্ঘক্ষণ অবশ্যই কম্পিউটার অন করে রেখে অনলাইনে কোন কিছু একটা করেন!

যদি এ পর্যন্ত আপনি করে থাকেন; তাহলে এর পর থেকেই আসল গল্প শুরু! অর্থাৎ তাহলে আপনিও আপনার অজান্তেই নিজের অনেক টা ক্ষতি করে চলেছেন!

এখন আপনার মাথায় অবশ্যই এই প্রস্ন টা আসছে যে কিভাবে আমরা নিজেদের অজান্তেই নিজেদের ক্ষতি করে চলেছি। হুম; আপনাকে উত্তর দেওয়ার জন্যই তো আর্টিকেল লেখা!

সো সাথেই থাকুন, আপনার প্রশ্নের উত্তর পেয়ে জাবেন।

কম্পিউটারের সামনে দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা!

ধরে নিলাম আপনি অনলাইন ভিত্তিক কোন জব করছেন না; আপনি জাস্ট অনলাইনে এসে টাইম পাস করছেন, অথবা মুভি বা টিভি সিরিজ দেখছেন।

ব্যাস, তাহলেও কিন্তু আপনি আপনার অজান্তে নিজের অনেক টা ক্ষতি করে চলেছেন! কিভাবে; গবেষক দের ভাষ্য মতে যারা এই অনলাইন ভিত্তিক জব করে – বা যারা দীর্ঘক্ষণ একটানা কম্পিউটারের সামনে বসে থাকে।

তারা নিজেদের অজান্তেই নিজেদের অনেক টা ক্ষতি করে চলেছে!

যেমন কি কি ক্ষতি? প্রথমত একটা পর্যায়ে গিয়ে চোখে অনেকটা কম দেখা, তারপর ঘাড়ে, হাঁটুতে, মাজায় ও মাথায় প্রচণ্ড ব্যাথা হওয়া, এবং হজম শক্তি কমে যাওয়া + কিডনিতে সমস্যা হওয়া। মানে এক কথায় সমস্যার কিন্তু শেষ নেই!

তার মানে কি; যদি এসব হয় তাহলে আমরা অনলাইনে কাজ করবো কিভাবে বা অনলাইনে টাইম স্পেন্ড করবো কিভাবে? হুম উপায় আছে ব্রো উপায় আছে।

কি কি উপায়?

প্রথমত আপনি দিন হোক কিংবা রাত; যদি আপনাকে অনেক বেশি সময় নিয়ে কম্পিউটার ব্যবহার করতে হয় তাহলে অবশ্যই আপনার কম্পিউটারে নাইট-মুড অপশন টা এনাবেল করে রাখবেন।

এতে করে হবে কি, আপনার চোখের উপর পেশার টা অনেক কম পড়বে! আপনি নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন কখনও না কখনও একটানা অনেক টা সময় নিয়ে কম্পিউটার বা মোবাইল ফোন ব্যবহার করলে চোখে মারাত্তক রকম একটা জ্বালা জ্বালা ভাবের সৃষ্টি হয় এবং সেই সাথে প্রচণ্ড মাথা ব্যাথা হয়।

আসলে এই চোখে জ্বালা জ্বালা ভাব ও মাথা ব্যাথা হওয়ার পিছে কারন হচ্ছে মোবাইল বা কম্পিউটারের স্ক্রিন থেকে নির্গত ব্লু লাইট।

আপনি যদি এই ব্লু লাইট থেকে নিজের চোখ ও মাথা কে সুস্থ রাখতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার কাঙ্ক্ষিত ডিভাইসে নাইট মুড এনাবেল করে তারপর ব্যবহার করুন!

এবার আসি মেইন গল্পে; আপনাকে তো উপরে বলা হল যে দীর্ঘক্ষণ বসে থেকে কাজ করলে কি,কি হতে পারে আপনার সাথে।

কিন্তু এখন কথা হচ্ছে এমন, আমাকে যেহেতু অনলাইন ভিত্তিক কাজ করতে হয় বা আমার সব কিছুই অনলাইনে তাহলে আমি কি করবো এখন?

হুম, আমি আপনাকে সঠিক পন্থা বলে দিচ্ছি আপনি যদি দীর্ঘক্ষণ একটানা বসে থেকে কাজ করতে চান তাহলে আপনি যদি নিজের উপর এই ছোটো ছোটো কয়েক টা বিষয় ইমপ্লিমেন্ট করতে পারেন, তাহলে আপনি নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে পারবেন!

১০ থেকে ১৫ মিনিট পর পর উঠে একটু হাটা, হ্যাঁ আপনি আপনার রুমের মাঝেই হাটুন না কে মানা করেছে। এবং আধা ঘন্টা বা এক ঘন্টা পর পর উঠে একটু করে জল খেয়ে নেওয়া।

মাঝে মাঝে একটু গা ছেড়ে দেওয়া; ও পারলে কিছু খন পর পর একটু প্রান ভরে নিঃশ্বাস নেওয়া। ব্যাস মোটামুটি এতোটুকু করলেই চলবে!

আসলে এখন মোড়াল ব্যাপার টা হচ্ছে; আমরা দিন কে দিন এতোটা আসক্ত হয়ে পড়ছি এই কম্পিউটার, মোবাইল ইন্টারনেট এই সকল জিনিসের উপর, যার ফলে এই সকল যান্ত্রিক জিনেসের সাথে থাকতে থাকতে এক প্রকার যান্ত্রিক মানুষ হয়ে উঠছি আমরা!

আর এ জন্যই আমরা যন্ত্রের মত আচরণ করতে শুরু করেছি। অর্থাৎ বসে আছি তো আছি; এটা করছি তো করছি; আরে ভাই সব কিছুর আগে আপনি!

আপনার জিবনের মূল্যটা অনেক বেশি; এ জন্য আপনার প্রথম দায়িত্ব হচ্ছে নিজেকে সুস্থ রাখা তারপর অন্য কাজ!

ভেবে দেখুন তো আপনি যদি নিজে সুস্থ না থাকেন তাহলে আপনি আপনার কাজ সঠিক ভাবে কিভাবে করবেন! তাই জন্য সর্বদাই নিজের যত্ন করুন, নিজেকে সুস্থ রাখুন।

ফিচার ইমেজ ক্রেডিট; By Matt Wojtaś Via Unsplash

আপনিও কি আমার মত টেক পোকা? আপনারও কি নতুন নতুন টেকনোলজি বিষয়ে জানতে ভালো লাগে? তাহলে বন্ধু আপনি একদম সঠিক জায়গাতে এসেছেন, কেননা আমি এখানে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন টেক বিষয় গুলি নিয়ে আলোচনা করি, এবং টেকনোলজির জটিল টার্ম গুলিকে আপনাদের সামনে জলের মত সহজ করে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

>