এই কারন গুলির জন্য অবশ্যই আপনার এসএসডি ব্যবহার করা উচিৎ!

এই-কারন-গুলির-জন্য-অবশ্যই-আপনার-এসএসডি-ব্যবহার-করা-উচিৎ

এসএসডি! আসা করি এসএসডির সাথে আপনাকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার মত কিছু নেই! আপনি, আমি আমরা সবাই কম বেশি এসএসডি সম্পর্কে অবগত। তবে হ্যাঁ, বিষয় টা এমন ভাবে বলা চলে ঠিক আছে আপনি এসএসডি সম্পর্কে সব কিছুই জানেন, কিন্তু এটা কি জানেন, কেন আপনার অবশ্যই এসএসডি ব্যবহার করা উচিৎ? ওয়েল যদি আপনি আপনার সিস্টেম এর জন্য আগে থেকে এসএসডি ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে মনে হয়না আপনাকে এই সম্পর্কে আর কিছু বলার প্রয়োজন আছে। বাট ব্রো, আপনি যদি এখনও এইচডিডি ব্যবহার করে থাকেন, তাহলে এই আর্টিকেল টি আপনার জন্য। তো তাহলে চলুন জেনে আসি কেন আপনার অবশ্যই আপনার সিস্টেম এর জন্য এসএসডি ব্যবহার করা উচিৎ।

বেটার পারফরমেন্স

আপনি যদি এখনও আপনার সিস্টেমে এইচডিডি ব্যবহার করেন ও তার সাথে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার কারি হয়ে থাকেন, তাহলে আমি জানি আপনি এখন কতটা বাজে পারফরমেন্স পাচ্ছেন আপনার সিস্টেম থেকে! তার কারন আমিও এই সেইম প্রব্লেম ফেচ করে এসেছি তবে সেটা অনেক আগে ২০১৭ সালের দিকে। আর সত্যি কথা বলতে কি তখন এসএসডির দাম প্রায় আকাশ ছোঁয়া ছিল। যাই হোক আমি যে অনেক বেশি বড়লোক্স এখানে তাহা বুঝানোর চেস্টা করলাম একটু আর কি।হি,হি,হি

তো ধরে নেওয়া যাক আপনি আপনার সিস্টেমের জন্য এখনও এইচডিডি + উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করছেন, ভাই একটু মন থেকে বলবেন আপনি কি আপনার সিস্টেমের পারফরমেন্স নিয়ে সেটিস্ফাই? না একদমই না, দেখুন ব্রো আপনি যতই হাই কনফিগারেশনের কম্পনেট ব্যবহার করুন না কেন আপনার সিস্টেমে। যদি আপনি আপনার সিস্টেমের জন্য একটা এসএসডি ব্যবহার না করেন তাহলে, আপনার সিস্টেমের পারফরমেন্স সারাজীবনই এরকম বাজে পেতে হবে।

আপনি এইচডিডি থেকে এসএসডি তে মুভ করার পর বুজবেন যে, আসলে আপনার সিস্টেম কতটা বেটার পারফরমেন্স করতে সক্ষম! যেখানে আপনি এইচডিডি ব্যবহার করে অনেক বাজে পারফরমেন্স পেয়েছেন, সেখানে এসএসডি তে মুভ করার পর সব কিছু মনে হবে মারাত্তক রকম ভালো। হ্যাঁ ব্রো আমি একবারেই নির্ভেজাল ভাবেই আপনাকে বলছি।

আপনার সিস্টেম এর বুট স্পীড তুলনামুক ভাবে অনেকটা ফাস্ট হয়ে যাবে। এইচডিতে যেখানে আপনার উইন্ডোজ ১০ এর বুট স্পীড ছিল ৫০ সেকেন্ড থেকে ২ মিনিট সেখানে আপনি এসএসডিতে মুভ করার পর আপনার সেই উইন্ডোজ ১০ এর বুট স্পীড হয়ে যাবে ১০ থেকে ১৫ সেকেন্ড মাত্র। আরও আছে ব্রো আপনি বলুন তো এইচডিডিতে আপনার গুগল ক্রোম ওপেন করতে কতটা টাইম লাগে? হুম, ৪০/৫০ সেকেন্ড তো খুব ভালো করেই লাগে কিন্তু আপনি যদি এইচডিডিতে থেকে এসএসডিতে মুভ করে তাহলে আপনার গুগল ক্রোম ওপেন করতে মাত্র ৪/৫ সেকেন্ড মত সময় লাগবে। ব্রো সত্যি কথা কি আপনি যদি এইচডিডি থেকে এসএসডিতে মুভ করেন তাহলে সব কিছুর পারফরমেন্সই অনেক অনেক বেশি ভালো পাবেন।

আপনার জন্য ছোট্ট একটা পরামর্শ, যদি আপনি আপনার সিস্টেমের পারফরমেন্স নিয়ে অসন্তুস্ত হয়ে থাকেন এবং ভাবছেন যে আপনি আপনার সিস্টেম আপগ্রেট করবেন। তবে ব্রো আপনার সম্পূর্ণ সিস্টেম আপগ্রেট করার পূর্বে আপনি আপনার সিস্টেমের জন্য একবার হলেও এসএসডি ট্রাই করে দেখুন। আপনি এসএসডি ট্রাই করার পরেও যদি দেখেন যে আপনার সিস্টেম এর পারফরমেন্স একটুও ভালো হয়নি আগের থেকে, তাহলে আপনি আপনার সিস্টেম আপগ্রেট করার কথা চিন্তা করতে পারেন। তবে সত্যি কথা কি, এমন টা কখনই হবে না আপনি এইচডিডি থেকে এসএসডিতে মুভ করলে আপনাকে পারফরমেন্স নিয়ে কমপ্লেন করবার মত কোথাও কোন জায়গা থাকবে না!

আপনি যদি শুধুই ভেবে থাকেন যে হুম আমার এসএসডিতে মুভ করতে হবে মুভ করতে হবে। তাহলে আমি আপনাকে বলব হ্যাঁ ব্রাদার এটা আপনার নেওয়া খুব ভালো একটি ডিচিশন। আপনি আজই এসএসডিতে মুভ করে ফেলুন। আর একটা বিষয় যদি আপনি এসএসডিতে মুভ করতে না চান বা ইচ্ছা থাকলেও যদি উপায় না থাকে তাহলে আপনার জন্য আমার পরামর্শ থাকবে আপনি উইন্ডোজ ব্যবহার না করে লিনাক্স ব্যবহার করে দেখতে পারেন। যদি আপনি উইন্ডোজ এর পারফরমেন্স নিয়ে সন্তুষ্ট না হয়ে থাকেন তাহলে! এইচডিডি + লিনাক্স বেস্ট কম্বিনেশন।

মারাত্তক রকম স্ট্যাবিলিটি

হুম,আপনি উইন্ডোজ ব্যবহার করছেন আর আপনি কখনও ব্লু স্ক্রিন অফ ডেথ দেখেন নাই। এটা হওয়ার পসেবিলিটি খুবই কম। আপনিও হয়তবা অনেক ক বার আপনার কম্পিটারে ব্লু স্ক্রিন অফ ডেথ দেখে থাকবেন। বাট যদি আপনি এসএসডিতে মুভ করেন তাহলে এই ব্লু স্ক্রিন অফ ডেথ ও উইন্ডোজ মাঝে মাঝে পড়ে যাওয়া এই সকল বিষয় কে একবারেই ভুলে জাবেন। মানে যেখানে এইচডিডি ব্যবহার করলে ১/২ মাসে কয়েক বার করে উইন্ডোজ দেওয়া লাগে, সেখানে আপনি এসএসডি তে মুভ করলে ৬/৮ মাসেও উইন্ডোজ দেওয়া লাগবেনা। আপনি একদম ভুলেই যাবেন যে উইন্ডোজ কিভাবে দিতে হয়। হি,হি,হি!

এছারাও আরও কিছু বিষয় আছে যেমন অনেক খন সময় নিয়ে যদি কম্পিটার অন করে রাখা হয় সেক্ষেত্রে কিছু সময় পরে গিয়ে বাজে পারফরমেন্স এর স্বীকার হতে হয় কিন্তু আপনি যদি এসএসডি ব্যবহার করেন তাহলে এরকম টা হওয়ার কোনই সম্ভাবনা নেই। চলতেই থাকবে,চলতেই থাকবে।

এসএসডির দাম

মোটেও খুব বেশি না, ১২০ জিবি এসএসডির দাম এখন ২৫০০ থেকে ২৭০০ টাকা এরকম চায়না এসএসডির দাম আরও কম ১২০ জিবি চায়না এসএসডির দাম ১৫০০/ ১৭০০ টাকা এরকম। বাট হ্যাঁ ভুলেও কিন্তু এই চায়না এসএসডির দিকে মুভ করবেন না। এখন আপনার মনে হতেই পারে ২৫০০ টাকা দিয়ে মাত্র ১২০ জিবি এসএসডি পাবো, যেখানে ২৫/2700 টাকায় আমি ১ টেরাবাইট এইচডিডি পেয়ে যাচ্ছি। হ্যাঁ ব্রো এইচডিডি থেকে এসএসডির দাম টা বেশ কিছুটা বেশি। এবং কেন বেশি এটাও আপনাকে উপরে বুঝিয়ে বলেছি!

তবে হুম, যদি আপনার অনেক বেশি স্পেস এর প্রয়োজন হয়ে থাকে তাহলে আপনি উইন্ডোজ এর জন্য ১২০ জিবি একটা এসএসডি ব্যবহার করতে পারেন। আর আপনার স্পেস এর জন্য এইচডিডি ব্যবহার করতে পারেন। মানে সহজ কথায় ১২০ জিবি তে উইন্ডোজ ইন্সটাল করবেন আর এইচডিডিতে আপনার পছেন্দের গান, মুভি ইত্যাদি ইত্যাদি রাখবেন।

সব কিছুর শেষ কথাটা এমন; আপনি এইচডিডি থেকে যখনই এসএসডিতে মুভ করবেন তখন আপনার মনে হতে শুরু করবে আপনি সব কিছুই যেন নতুন করে এক্সপ্রিয়ান্স করছেন। এ যেন এক ভিন্ন কিছু!

ইমেজ ক্রেডিট; 🇨🇭 Claudio Schwarz Via Unsplash

আপনিও কি আমার মত টেক পোকা? আপনারও কি নতুন নতুন টেকনোলজি বিষয়ে জানতে ভালো লাগে? তাহলে বন্ধু আপনি একদম সঠিক জায়গাতে এসেছেন, কেননা আমি এখানে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন টেক বিষয় গুলি নিয়ে আলোচনা করি, এবং টেকনোলজির জটিল টার্ম গুলিকে আপনাদের সামনে জলের মত সহজ করে উপস্থাপন করার চেষ্টা করি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *