এসইও সিক্রেট, কিভাবে এসইও সবার জন্য আলাদা হয়ে থাকে ।

এসইও সিক্রেট, এটা কোন ছোট খাটো বিষয় নয় যা দু এক দিনের মাঝেই আপনি শিখে নিতে পারবেন।

এসইও শুনতে যতটা সহজ মনে হয়, প্রাক্টকেলি প্রপার ভাবে এসইও করে সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক করিয়ে নেওয়া ভিন্ন বিষয়।

আমি যখন প্রথম ব্লগিং শুরু করি, তখন না জানি কত কি করেছি নিজের ব্লগ র‍্যাংক করিয়ে নেওয়ার জন্য। বাট তেমন ভাবে কিছুই কাজে দেইনি।

কিন্তু কেন, কিভাবে এসইও প্রত্যেকের জন্য আলাদা, আলাদা হতে পারে?

হ্যাঁ, এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব সম্পূর্ণ আর্টিকেল জুড়ে। তবে মুল আর্টিকেলে যাওয়ার পূর্বে কিছু কথা আপনি হয়তবা আমার মতামতের সাথে সম্পূর্ণ একমত নাও থাকতে পারেন।

বাট আমি এখানে আমার নিজের সম্পূর্ণ অভিজ্ঞতা তুলে ধরতে চলেছি, অর্থাৎ আমি আমার নিজস্ব অপেনিয়ন আপনাদের সামনে রাখতে চলেছি।

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক এসইও সিক্রেটস গুলো, ও কেন সবার জন্য এসইও আলাদা আলাদা হয়ে থাকে।

এসইও কি
এসইও কিভাবে সবার জন্য ভিন্ন ভাবে কাজ করে

কিভাবে এসইও সবার জন্য আলাদা

শুরুতেই আমাদের খুব সহজ ভাবে বুজতে হবে। মনে করুণ আপনি বর্তমানে একদম নতুন ব্লগিং শুরু করেছেন। ব্লগিং সম্পর্কে আপনি খুব বেশি অবগত নন।

এবং স্বাভাবিক ভাবেই, আমাদের সকলেরই পছন্দের অনেকেই থাকে। আমরা যাদের ফলো করে থাকি। অর্থাৎ বলা চলে আমরা অনেক সফল ব্লগারদের দেখেই কিন্তু অনেক সময় ব্লগিং শুরু করে থাকি, বা ব্লগিং শুরু করতে ইচ্ছা হয়।

এবং যথারীতি, আমরা যাদের ফলো করে থাকি। সর্বদা চেষ্টা করে থাকি সব কিছু একদম তারমত করে নেওয়ার।

না, এখানে কোন ভুল নেই। কারণ আপনি যদি কাউকে ফলো না করেন তাহলে সব কিছু সম্পর্কে ধারনা পাবেন কিভাবে?

কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, মনে করুণ আপনি যাকে ফলো করছেন বা দেখছেন সে আজ ব্লগিং ফিল্ডে সফল, এবং সে আপনাকে যেভাবে যা কিছু বলছে তা আপনি নিজের ব্লগে ইনপ্লিমেন্ট করবার পরেও আপনি ভাল কিছু পাচ্ছেন না?

কিন্তু কেন?

হ্যাঁ, এখানেই আসল গল্প। আমি শুরুতেই এ জন্য বলছি এসইও এ জন্যই সবার জন্য আলাদা।

দেখুন আমি এখানে কাউকে মিন করে কিছু বলছি না, ধরে নেওয়া যাক আপনি আমিসহ আরও কয়েক জনকে ফলো করেন।

  • এখন, আমি আপনাকে বলছি ব্যাকলিংক তৈরি না করেও ওয়েবসাইট র‍্যাংক করানো যেতে পারে।
  • এবার অন্য কেউ আপনাকে বলছে ব্যাকলিংক তৈরি না করলে আপনি কিছুই করতে পারবেন না।
  • আবার একই ভাবে অন্য আর একজন বলছে যত বেশি করে প্রচুর আর্টিকেল লিখতে পারবেন, ততই দ্রুত আপনি র‍্যাংক করতে পারবেন।

এখন দেখুন এখানে কিন্তু কেউই আপনাকে ভুল কিছু বলছে না। কারণ তারা সবাই যেভাবে নিজের ব্লগ র‍্যাংক করিয়েছে, আপনার সাথে ঠিক তাই শেয়ার করেছে।

আপনার মনে কি কনফিউশন তৈরি হচ্ছে

যদি আপনি উপরে বর্ণীত সকল বিষয় খুব মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন, তাহলে আশা করছি আপনার মনে কিঞ্চিৎ হলেও কনফিউশন তৈরি হয়েছে।

চিন্তা করবেন না, আমি বিস্তারিত বুঝিয়ে বলব।

আমি যেমন বলছিলাম, আপনি, আমি আমরা যাদের ফলো করি তারা প্রত্যেকেই আলদা, আলাদা কথা বলে।

কেউ বলে, এভাবে করলে অনেক দ্রুত র‍্যাংক করা যায়। আবার কেউ বা অন্য কথা বলে।

বাট যদি বাস্তবতা দেখেন, তাহলে হ্যাঁ এটাই সত্য তারা প্রত্যেকেই আপনাকে সঠিক তথ্য বা গাইডলাইন দিচ্ছে।

কারণ এসইও সবার জন্য এক রকম ভাবে কাজ করে না। কেউ হয়তবা প্রচুর ব্যাকলিংক তৈরি করে তারপর নিজের ব্লগ র‍্যাংক করিয়ে নিয়েছে।

আবার কেউ শুধু ভাল ভাল কনটেন্ট লিখে অল্প কিছু দিনের মাঝেই র‍্যাংক করতে পেরেছে।

মোরাল, ধরুন আপনি আমাকে ফলো করেন। আপনি আমার থেকে জানতে চাইলেন ভাই কিভাবে দ্রুত ওয়েবসাইটে এসইও করে র‍্যাংক করিয়ে নিতে পারব।

আমি আপনাকে বললাম ভাই, আপনি প্রচুর হাই কোয়ালিটি কনটেন্ট লিখুন।

আপনি আমার কথা মত কাজ করলেন, বাট আপনার যেমন টা এক্সপেক্টেশন ছিল তেমন কিছু রেজাল্ট আপনি পাননি।

আবার অন্য দিকে আপনি অন্য কেউকে ঠিক এই একই প্রস্ন করলেন। সে আপনাকে বলল প্রচুর কমেন্ট ব্যাকলিংক বানাও এবং আপনি প্রচুর কমেন্ট ব্যাকলিংক তৈরি শুরু করলেন।

ও একটা সময় দেখলেন আপনি র‍্যাংক করতে শুরু করেছেন।

তাহলে এখানে কি আমি ভুল ছিলাম?

না একদমই না, আমি যেভাবে নিজের ব্লগ র‍্যাংক করেয়েছি আপনার সাথেও আমি একই বিষয় শেয়ার করেছি। কিন্তু ফলাফল কি দেখলেন?

আর আমি শুরু থেকেই এ জন্য বলেছি এসইও সবার জন্য আলাদা। অন্যথায় চিন্তা করুণ আমি যেভাবে র‍্যাংক করেছি আপনি কেন একই ভাবে র‍্যাংক করতে পারলেন না।

শুধু, অনপেজ এসইও বা অফপেজ এসইও করে নেওয়াই শেষ কথা নয়।

বর্তমানে অনপেজ এসইও করে নেওয়া খুব সহজ একটা বিষয়। আপনি জাস্ট কয়েকটা ক্লিক করেই প্লাগইন ব্যাবহারের মাধ্যমে নিজের ওয়েবসাইটে প্রপার ভাবে অনপেজ এসইও করে নিতে পারবেন।

কিন্তু কি? অনপেজ এসইও করে নিলেই কি সব হয়ে যাচ্ছে? না একদমই না।

অনেকেই মনে করে অনপেজ এসইও করবার জন্য ভাল একটি এসইও প্লাগইন ব্যাবহার করলেই হয়ে যাচ্ছে।

বাট বাস্তবতা ভিন্ন। যদি তাই এ হত তবে ব্লগিং ফিল্ডের পরিনতি আজ প্রচুর বাজে হয়ে যেত, কেননা যে কেউ চাইলেই যদি শুধু একটি প্লাগইনের মাধ্যমে ওয়েবসাইট র‍্যাংক করিয়ে নিতে পারত।

তবে সকলেই এই ফিল্ডে কাজ করত।

একটি এসইও প্লাগইন আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের অনপেজ এসইও সঠিক ভাবে করে নিতে সাহায্য ঠিকই করে থাকে। তার মানে কখনই এটা নয় যে একটি এসইও প্লাগইন আপনাকে অনেক দ্রুত র‍্যাংক করিয়ে দিতে পারে।

এবার আসি, অফপেজ এসইও নিয়ে। অনেকেই মনে করেন সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পেজ বা গ্রুপ থাকলে সেখানে নিয়মিত নিজের ব্লগের কনটেন্ট শেয়ার করলেই সঠিক ভাবে অফপেজ এসইও হয়ে যায়।

যদি আপনিও বিষয় টা এমন মনে করে থাকেন, তবে তা ভুল কিছু নয়।

কিন্তু হ্যাঁ এখানে কিছু বিষয় রয়েছে যেমন অনেকেই মনে করেন যদি সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের ব্লগের কনটেন্ট প্রচুর ভাবে শেয়ার দেওয়া যায়। তবে আপনি অনেক দ্রুত র‍্যাংক করিয়ে নিতে পারবেন।

এই আর্টিকেলে অনপেজ এসইও, এবং অফপেজ এসইও নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করছি না। এতে এই আর্টিকেলের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে।

আমি অনপেজ এসইও ও অফপেজ এসইও নিয়ে ডিডিকেটেড আর্টিকেল তৈরি করে সেখানে অনপেজ এসইও ও অফপেজ এসইও সম্পর্কে বিস্তারিত বলব।

আমার এখানে অনপেজ এসইও বা অফপেজ এসইও করে নেওয়াই শেষ কথা নয়, কথা তা বলার পিছে কারণ হচ্ছে অনেকেই মনে করেন শুধু অনপেজ, অফপেজ এসইও করে নিলেই কাজ শেষ।

না তা কিন্তু মোটেই নয়।

বেসিক এসইও সবার জন্যই একই।

আমি আর্টিকেলের শুরুতে যেমন বলছি, এসইও কোন সাধারন বিষয় নয়। যে কিছুদিন সময় দিয়েই সব কিছু শিখে নেওয়া যেতে পারে।

এসইও ফিল্ড অনেক বড়, এই এসইও এর জন্য গুগল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলো টিকে আছে।

তো আপনি কিভাব ভাবতে পারেন এতো বিলিয়ন বিলিয়ন টাকার কম্পানি গুলো এসইও জিনিস টা একদম সহজ করে আপনার সামনে উপস্থাপন করবে।

যার থেকে আপনি খুব সহজেই এসইও সম্পর্কে বিস্তর জ্ঞান অর্জন করতে পারেন।

তবে হ্যাঁ, বেসিক এসইও কিন্তু সবার জন্য একই।

যেমন,,

  • টাইটেল
  • ট্যাগ
  • হেডিং
  • মেটা ডেসক্রিপশন
  • কিওয়ার্ড
  • ইমেজ
  • ভিডিও
  • Alt ট্যাগস
  • ইন্টারনাল লিংক
  • এক্সটালনাল লিংক

এসইও এর এই বেসিক বিষয় গুলো আপনার আমার সবার জন্যই এক। মানে এসইও করতে হলে প্রথমেই আমাদের সবার এই বিষয় গুলো অবশ্যই করতে হবে।

এখানে নতুন কিছু নেই।

তাহলে এসইও আসল সিক্রেট টা কি? নিচে বিস্তারিত আলোচনা করছি।

এসইও সিক্রেট

দেখুন আমি নিজে কোন প্রফেশনাল এসইও এক্সপার্ট নয়। আমি এখানে যা কিছু শেয়ার করছি টা আমার বিগত কয়েক বছরের অভিজ্ঞতা।

আমি আমার ব্লগে প্রতিটা বিষয় পূর্বে নিজের সাথে অর্থাৎ নিজের ব্লগের সাথে ইমপ্লিমেন্ট করি, তারপর আপনাদের সাথে টা শেয়ার করি।

আসলে এসইও বিষয় টা এতো কঠিন যা একটি মাত্র আর্টিকেল পড়ে আপনি রপ্ত করতে পারবেন না। প্রচুর অনুশীলন করতে হবে একটা সময় ধিরে ধিরে এসইও আপনার জন্য সহজ হয়ে উঠবে।

উপরে আমি আপনাকে বলেছি, এসইও প্রত্যেকের জন্য আলাদা, আলাদা হয়ে থাকে।

আবার এটাও বলেছি, হয়তবা আপনি যাদের ফলো করছেন তারা সকলেই ভিন্ন ভিন্ন মত প্রকাশ করছে, বা তারা যেভাবে নিজেরা ব্লগ র‍্যাংক করিয়েছে টা বলছে।

এখন তাহলে আপনি কি করবেন? কে ঠিক বা কে ভুল?

আমি পূর্বেও বলেছি, এসইও সবার জন্যই আলাদা, আলাদা হয়ে থাকে। আপনি যাদের ফলো করছেন তারা যে যেভাবে র‍্যাংক করেছে তারা আপনার সাথে তাই শেয়ার করেছে।

এখানে কেউই ভুল নয়।

কিন্তু তবে কথা হচ্ছে, আপনি তাহলে কি করবেন? এটাই আসলে এসইও সিক্রেটস।

নিচে বলছি বিস্তারিত,,

দেখুন এসইও কিভাবে কাজ করে বা কখন কার ব্লগ বা ওয়েবসাইট কিভাবে র‍্যাংক করতে টা বলা সম্ভব না।

যার ফলে, মনে করুণ আপনি চার, পাঁচ জন সফল বাক্তিত কে ফলো করছেন। বা বলা চলে তারা আজ ব্লগিং ফিল্ডে একটি ভাল জায়গায় অবস্থান করছে।

আপনি উচিৎ তাদের প্রত্যেকের কথা শোনার ও তাদের বলা সব কিছুই একটা একটা করে নিজের ব্লগে ইমপ্লিমেন্ট করা উচিৎ।

যেমন আরও সহজ করে বলছি, আমি আপনাকে বলছি যত বেশি সম্ভব গেস্ট পোস্ট করুণ।

আবার অন্য দিকে আপনি অন্য কাউকে ফলো করেন, তিনি আপনাকে বলছে বেশি করে ডু-ফলো ব্যাকলিংক তৈরি করতে।

এভাবে যে যা বলছে আপনার ধিরে ধিরে নিজের ব্লগে এই সকল কিছু করে দ্যাখা উচিৎ। হতে পারে এর মাঝে কোন পদ্ধতি ব্যাবহারের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট র‍্যাংক হয়ে যেতে পারে।

আরও বিষয় আছে অনেকেই রয়েছে, তারা কোন সফল ব্লগ বর্তমান অবস্থায় শীর্ষে রয়েছে হুবহু তাদের মত করে কাজ করতে চায়।

বা তাদের অবস্থাতে যেতে চায়। পরামর্শ থাকবে এসব না করবার জন্য। কেননা বর্তমানে সার্চ ইঞ্জিন গুলো যথেষ্ট বুদ্ধিমান।

মনে করুণ আপনি কোন পপুলার ব্লগের মত করে যদি নিজের ব্লগের কনটেন্ট বা স্টাকচার তৈরি করেন। তখন সার্চ ইঞ্জিন গুলো খুব সহজেই বুঝে নিতে পারে।

আপনার মাঝে কোন নিজস্বতা নেই। তাই জন্য সর্বদা চেষ্টা করুণ নিজের মত করে সব কিছু করবার।

নিজের মত করে আর্টিকেল তৈরি করুণ। আর্টিকেল লেখার সময় শুধু এসইও প্লাগইনের উপর নজর না দিয়ে নিজের মত করে আর্টিকেল অপ্টিমাইজ করবার চেষ্টা করুণ।

জেনে রাখুন, বর্তমানে সার্চ ইঞ্জিন গুলো চায়। আপনি কনটেন্ট তৈরি করুণ আপনার পাঠকদের জন্য, কোন সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য নয়।

তাই জন্য যতটা সম্ভব সহজ ভাষায় ও ইউজার ফ্রেন্ডলি হয়ে কনটেন্ট তৈরি করুণ।

At The End

আমার কাছে প্রায় এই টাইপ কিছু প্রস্ন আছে। ভাই বর্তমানে আপনার সাইটে ট্র্যাফিক কেমন? আপনার অরগানিক ভিজিটর কেমন?

আপনার আর্টিকেল গুগল সার্চ দিয়েই পাই। কিন্তু আমাদের ব্লগের লেখা গুগল সার্চ দিলে কেন পাই না।

আবার অনেকে প্রস্ন করে ভাই। আপনি কিভাবে এসইও করেছেন। ব্লগ র‍্যাংক করতে কত সময় লাগে কিভাবে ওয়েবসাইট র‍্যাংক করিয়ে নিব।

যার জন্য আমরা চিন্তা করলাম, এসইও কিভাবে সবার জন্য আলাদা, আলাদা ভাবে কাজ করে। ও এসইও আসল সিক্রেট গুলো কি, কি টা সম্পর্কে আপনাদের অবগত করানর।

যার জন্য এই আর্টিকেল আপনাদের সাথে শেয়ার করা। আশা করি এই আর্টিকেল থেকে আপনি নতুন কিছু শিখতে বা জানতে পেরেছেন।

এই আর্টিকেল সম্পর্কে বা কিছু জানবার বা আপনার কোন মতামত থাকলে, নিচে কমেন্ট সেকশনে অবশ্যই তা আমাকে জানতে ভুলবেন না।

Hi, i'm Akash Golder, Author & founder of LarnBD , A blog that provides authentic information regarding technology, blogging, SEO, online earn money, how to guide & much more.

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *