LARNBD

ইন্টারনেট বাবহারে আপনি সচেতন তো? বিপদে পড়তে পারেন আপনিও!

ইন্টারনেট বাবহারে আপনি সচেতন তো? বিপদে পড়তে পারেন আপনিও!

ইন্টারনেট ব্যাবহারে আপনি সচেতন তো? বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহার করে না, এমন মানুষ খুজে পাওয়া যাবে না।

এখন কম বেশি সকলেই ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকে, সে যে পারপাসেই হোক, হোক সেটা সোশ্যাল মিডিয়া সাইট ব্যবহার, অথবা ইউটিউবে ভিডিও দেখা, বা অন্য কিছু; কিন্তু এখানে কথা একটাই আপনি ইন্টারনেট ব্যাবহারে কততুকু সচেতন?

আপনি সঠিক ভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন তো? অন্যথায় আপনিও বিপদে পড়তে পারেন; তো এতক্ষণে নিশ্চয়ই বুজতে পেরেছেন আজকের আর্টিকেলের টপিক কি?

আজ এই আর্টিকেলে আমি আপনার সাথে শেয়ার করবো, কিভাবে সচেতন হয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন, এবং আপনি যদি সচেতন হয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার না করেন তাহলে কি ধরনের প্রব্লেমে পড়তে পারেন, তাহলে চলুন মেইন আর্টিকেলের দিকে মুভ করা যাক।

ইন্টারনেট ব্যাবহারে সচেতন কিন্তু কিভাবে?

দেখুন আপনি প্রায় মাঝে মধ্যেই শুনে থাকবেন, অনেক বড় বড় পাবলিক ফিগার দের ফেচবুক পেজ,আইডি এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল হ্যাক হয়ে যায়, হুম, নিশ্চয়ই শুনে থাকবেন।

কিন্তু আপনি কি ভেবে দেখেছেন কিভাবে তাদের প্রোফাইল,পেজ এগুলা হ্যাক হয়? অনেকেই মনে করে থাকে এসব হ্যাকর হ্যাক করে থাকে, হ্যাঁ আপনি ঠিক জানেন, বা আপনি ঠিক শুনেছেন!

তবে আপনি এটা জানেন কি, হ্যাকর কিভাবে হ্যাক করে থাকে? না জানেন না নিশ্চয়ই, তাহলে আমি আপনাকে বলছি, আপনার সাধের সোশ্যাল মিডিয়া পেজ, প্রোফাইল হ্যাক হয়ে যায় আপনারই কিছু ভুল কর্মকাণ্ডের জন্য।

হ্যাঁ আমি ঠিক বলছি, আপনার সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল,পেজ সিকিউর করার জন্য আপনি কি,কি পদক্ষেপ ব্যবহার করে থাকেন? মানে আপনি আপনার সোশ্যাল মিডিয়ার যে অ্যাকাউন্ট টি আছে সেখানে কেমন পাস ওয়ার্ড ব্যবহার করেন, আপনি কি টু স্টেপ ভেরিফিকেশন ব্যবহার করেন আপনার সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট গুলি সিকিউর করতে?

নিশ্চয় না, করেন না, আর এসকল কারনের জন্নই আপনার সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট গুলি হ্যাক হয়ে যায়। সব সময় চেস্টা করবেন সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলিতে স্ট্রং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে, এবং অবশ্যই টু স্টেপ ভেরিফিকেশন ব্যবহার করবেন। তাহলে আপনার সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট গুলি ৯০% সিকিউর হয়ে যাবে।

টু স্টেপ ভেরিফিকেশন কি?

টু স্টেপ ভেরিফিকেশন এর সাথে অনেকেই পরিচিত, আবার অনেকেই এই টু স্টেপ ভেরিফিকেশন সম্পর্কে তেমন কিছুই জানেনা, যারা জানে না টু স্টেপ ভেরিফিকেশন কি তাদের জন্নই বলছি, ধরুন আপনার একটি অ্যাকাউন্ট এ টু স্টেপ ভেরিফিকেশন চালু কথা আছে, এখন আপনি জখনি সেই অ্যাকাউন্ট লগিন করতে যাবেন, মানে আপনার যে অ্যাকাউন্ট এ টু স্টেপ ভেরিফিকেশন চালু করা আছে সেই অ্যাকাউন্ট এর কথা বলছি আমি।

আপনি যখনি সেই অ্যাকাউন্ট এ লগিন করতে যাবেন, তখন আপনি আপনার ইউজার নেম, পাস ওয়ার্ড দিবেন, কিন্তু আপনি আপনার ইউজার নেম এবং পাস ওয়ার্ড দিয়েই সেই অ্যাকাউন্ট এর সম্পূর্ণ আক্সেস পাবেন না, আপনাকে সম্পূর্ণ আক্সেস পাওয়ার জন্য, একটা অন টাইম পাস ওয়ার্ড দিতে হবে, যেটা আপনার ফোনে আপনার দেওয়া কাঙ্খিত মোবাইল নাম্বারে আসবে।

এবং আপনি যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার মোবাইলে আসা অন টাইম পাস ওয়ার্ড টি দিবেন, ততক্ষণ পর্যন্ত আপনি আপনার অ্যাকাউন্ট এর ফুল আক্সেস পাবেন না, তাহলে বুজতে পারছেন এর মানে কি দাঁড়ালো, আপনার অ্যাকাউন্ট এর ইউজার নেম, এবং পাস ওয়ার্ড যদি অন্য কেউ জেনে থাকে, তাহলে সে হাজার চেস্টা করা সর্তেও আপনার অ্যাকাউন্ট এর আক্সেস পাবে না, যতক্ষণ না আপনার মোবাইলে আসা অন টাইম পাস ওয়ার্ড আপনি তাকে দিচ্ছেন।

না দেখে লিঙ্কে ক্লিক করা !

আমাদের মাঝে এমন অনেক কেই খুজে পাওয়া যাবে, যারা না দেখেই অনেক লিঙ্কে ক্লিক করে দেয়, এবং তারপরেই পড়ে যায় মহাবিপদে, মানে হ্যাকিং এর কবলে পড়ে যায়। কিন্তু কিভাবে??

অনেকেই আছে যারা আপনার অ্যাকাউন্ট এর আক্সেস পাওয়ায়র জন্য বা আপনাকে হ্যাক করার জন্য এধনের লিঙ্ক আপনার ইনবক্সে পাঠিয়ে থাকে, এবং আপনি তাদের টার্গেট অনুসারে যদি সেই লিঙ্কে ক্লিক করেন তাহলে আপনি ১০০% হ্যাকিং এর শিকার হবেন।

তাই সব সময় চেস্টা করবেন এসব লিঙ্ক থেকে বিরত থাকতে, আর কিভাবে বুজবেন যে এটা ফেক লিঙ্ক বা এই লিঙ্কে ক্লিক করা যাবে না? তার জন্য আপনি সরাসরি সেই লিঙ্কে ক্লিক না করে সেই লিঙ্ক টি সম্পূর্ণ কপি করবেন, এবং তারপর দেখবেন সেই লিঙ্ক টার সাথে “https://example.com” এরকম আছে কিনা।

যদি সেই লিঙ্ক টা স্পাম হয়ে থাকে তাহলে সেই লিঙ্ক টা এমন হবে, “http://example.com” আর আপনি যদি দেখেন লিঙ্ক টা এমন তাহলে ওই লিঙ্কে ভুলেও ক্লিক করবেন না। আর যদিও বা এই টাইপ এর লিঙ্কে ক্লিক করে থাকেন তাহলে আপনার কোন কিছু সেখানে দিবেন না, যেমন আপনার সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল এর ইউজার নেম, পাস ওয়ার্ড ব্লা,ব্লা।

অনেক সময় এমন হয়, হ্যাকার হুবহু আপনার সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট এর মত সেইম দেখতে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে থাকে, এবং আপনার কাছে না,নান টাইপ এর ফেক ম্যাসেজ দিয়ে থাকে, এবং আপনাকে অনেক সময় এমন ও বলতে পারে, আপনার অ্যাকাউন্ট সিকিউর না, আপনার অ্যাকাউন্ট সিকিউর করতে এই লিঙ্কে ক্লিক করে আপনার ইউজার নেম, পাস ওয়ার্ড দিয়ে আপনার অ্যাকাউন্ট টি সিকিউর করে নিন।

ভুলেও এমন করবেন না আপনি, যদি এমন করেন তাহলে আপনি শতভাগ নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন, আপনি হ্যাকিং এর কবলে পড়বেন। মনে রাখবেন কোন সোশ্যাল মিডিয়া সাইট এরকম করে না, মানে তাদের ইউজার দের কে ম্যাসেজ করে সরাসরি বলে না যে আপনার অ্যাকাউন্ট টি সিকিউর না, এই লিঙ্কে ক্লিক করে আপনার অ্যাকাউন্ট টি সিকিউর করে নিন।

লোভনীয় ইমেল?

আপনি ইমেল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে থাকলে অনেক সময় খেয়াল করে দেখবেন, আপনার সামনে অনেক লোভনীয় ইমেল আসে যেমন, এটা করে এত টাকা ইনকাম করুন, তারপর কোন এক সুন্দরির ছবি দিয়ে এমন ও থাকতে পারে তার সাথে ডেট করতে চাইলে এই ওয়েবপেজ ভিসিট করুন, বা এই আপস টা ডাউনলোড করুন।

না এগুলা ভুলেও করবেন না, যদি আপনি তাদের দেওয়া ওয়েবপেজে জান, তাহলে আপনার সাথে খারাপ কিছুও হতে পারে, আর যদি আপনি তাদের দেওয়া লিঙ্ক থেকে রিকমেন্ড করা আপস বা অন্য কিছু ডাউনলোড করেন, তাহলে বুজবেন নিজের ক্ষতি নিজেই দেকে আনছেন।

এসকল আপস বা ওয়েবপেজে অনেক ম্যালিসিয়াস কোড থাকতে পারে, জার ফলে আপনি হ্যাক হয়ে জেতে পারেন। কোন থার্ড পার্টি ওয়েবসাইট থেকে আপস ডাউনলোড করা থেকে বিরত থাকুন, আপস ডাউনলোড করতে হলে সরাসরি প্লে স্টর থেকে ডাউনলোড করুন, তাহলেই আপনি শতভাগ নিরাপদ থাকবেন।

আপনি যদি সচেতন হয়ে ইন্টারনেট না ব্যবহার করেন তাহলে কি ধরনের প্রব্লেমের সম্মুখীন হতে পারেন??

প্রথমেই আপনি হ্যাকিং এর শিকার হবেন, আর হ্যাকিং এর শিকার হলে আপনি কি ধরনের প্রবলেম এর সম্মুখীন হবেন এটা তো খুব ভাল করেই বুজতে পারছেন, আপনার হ্যাক হওয়া অ্যাকাউন্ট এ যদি আপনার পার্সোনাল কোন ইনফরনেশন থেকে থাকে, তাহলে আপনাকে সেই তথ্য বাঁচাতে হলে, হ্যাকার এর যে দাবী সেটা মুখ বন্ধ করে শুনতে হবে, এবং সে যা বলতে তাই করতে হবে।

এছারাও আপনি যদি তার কথা না শুনেন বা তার যা চাহিদা সেগুলা পুরন না করেন তাহলে আপনার প্রিভেসি বলতে আর কিছুই থাকবেনা, তাহলে বুজতেই পারছেন ছোটো, ছোট কিছু ভুল এর জন্য আপনি কততা বিপদে পড়তে পারেন।

এ জন্যই সব সময় সচেতন হয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করুন। পরিশেষে এটাই বলব নিজের প্রিভেসি সেভ রাখতে ইন্টারনেট ব্যাবহারে সচেতন হন, এবং অন্যকেও সচেতন করুন। ধন্যবাদ, এতখন সাথে থাকার জন্য, টা,টা

আকাশ গোলদার

ইট বালির এই শহরে, লেখালেখি করেই শান্তি খুঁজে পাই, বা এভাবেও বলা চলে, এই লেখালেখির মাঝেই নিজেকে নিজে খুঁজে পাই... এবং তারই সুত্রপাতে এখানে লেখা, আর এই ব্লগ টি তৈরি করার মুল পারপাস হচ্ছে, ওয়েব প্রযুক্তির সর্বাধিক সুবিধা গ্রহণের ক্ষেত্রে আপনাকে সহায়তা করা! এবং টেকনোলজির জটিল টার্ম গুলো আপনার সামনে সহজ ভাবে উপস্থাপন করা…

Add comment

Secured By miniOrange