LARNBD

ইউটিউবিং নাকি ব্লগিং আপনি কোনটি করবেন? সুভিদা ও অসুভিদা!

ইউটিউবিং নাকি ব্লগিং আপনি কোনটি করবেন? সুভিদা ও অসুভিদা!

আজ মারাত্মক রকম জটিল একটি প্রশ্নের উত্তর দিতে চলেছি, আসলে ইউটিউবিং এবং ব্লগিং নিয়ে আমাদের মাঝে অনেক রকম মিস কনসেপশন আছে! আমাদের মাঝে অনেকেই এমন আছে যারা এই দুটি বিষয় নিয়ে অনেক বেশি কিউরিয়াস, এবং অনেক বেশি কনফিউস!

তো যাই হোক, আজ এই আর্টিকেলে আমি আপনার সাথে শেয়ার করার চেষ্টা করবো, ইউটিউব এবং ব্লগিং আপনি কোনটি করবেন? আপনার জন্য ভালো কি হতে পারে? এবং সব শেষে ইউটিউব এবং ব্লগিং এর সুভিদা ও অসুভিদা গুলি তুলে ধরবো। তাহলে চলুন এখানে বেশি কথা না পেচিয়ে মেইন আর্টিকেলের দিকে মুভ করা যাক; সাথেই থাকুন…

ইউটিউব নাকি ব্লগিং?

দেখুন এখানে বিষয় টা এমন আপনি কি পারেন বা না পারেন এটা মেটার করে না, এখানে দেখার বিষয় হচ্ছে আপনার ভালো লাগে কি করতে? হুম; ধরে নেওয়া যাক, আপনার টেকনিক্যাল বিষয়ের উপর খুব ভালো নলেজ আছে, এখন আপনি চাচ্ছেন সেই দক্ষতা বা নলেজ কে কাজে লাগিয়ে ইউটিউবিং করতে! হ্যাঁ নির্দ্বিধায় করতে পারেন।

আবার আপনার ওই সেইম টেকনিক্যাল বিষয়ের উপর নলেজ আছে; কিন্তু এখানে আপনি চাচ্ছেন ব্লগিং করতে, তাহলে? হ্যাঁ আপনি তাও করতে পারেন।

দেখুন ইউটিউব এবং ব্লগিং এর মাঝে পার্থক্য শুধু এটাই, ইউটিউবে আপনাকে ক্যামেরার সামনে বসে ভিডিও তৈরি করতে হবে। আর ব্লগিং করলে আপনি ইন্ডিভিজুয়াল ভাবেই করতে পারবেন। এখন আপনাকে বুজতে হবে আপনি ক্যামেরার সামনে বসে কথা বলতে কতটা কম্ফোর্টেবল? আপনি যদি ক্যামেরার সামনে বসে অনবরত কথা বলে যেতে পারেন তাহলে ইউটিউব ই ভালো আপনার জন্য।

এছাড়াও ইউটিউব এ রাতারাতি পপুলার হয়ে উঠা যায়, যা ব্লগিং ফিল্ডে পসেবল না; তবে হ্যাঁ, আপনার কন্টেন্ট যদি ভালো মানের হয় তবেই ইউটিউবে আপনি রাতারাতি পপুলার হয়ে উঠতে পারবেন।

এবার আসি ব্লগিং এর দিকে, দেখুন ব্লগিং কোন কালেই টাকা ছাপানোর মেশিন ছিল না, আজ ও নেই! ব্লগিং গভীর জলে মাছ নিয়ে খেলা করার মতো; আপনাকে সময়,ধৈর্য, অর্থ সব কিছুই আগে দিয়ে হবে তারপর আপনি ব্লগিং থেকে কিছু করতে পারবেন বা টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যদি শুধু মাত্র রাতারাতি টাকা ছাপানোর জন্য ব্লগিং করতে চান তাহলে, ব্লগিং করে কিছুই করতে পারবেন না।

আপনি যদি প্রচুর সময়, মেধা, অর্থ নিজের সম্পূর্ণ ডেডিকেশন দিয়ে ব্লগিং করতে পারেন; বা যদি মনে করে থাকেন যে আপনি এই সব কিছু ব্লগিং করতে দিতে পারবেন, তাহলে ব্লগিং আপনার জন্য একদম আদর্শ।

সুভিদা ও অসুভিদা !

দেখুন সুভিদা ও অসুভিদা দুটটেই আছে, ব্লগিং করতে হলেও আপনাকে কিছু অসুভিদা ফেচ করতে হবে; আবার ইউটিউবিং করতে হলেও আপনাকে কিছু অসুভিদা ফেচ করতে হবে।

যেমন ইউটিউবিং করতে হলে আপনাকে ক্যামেরার সামনে বসে কথা বলতে হবে, যা অনেকের কাছে মারাত্মক রকম অস্বস্তিকর, তারপর আপনাকে ভালো ইডিটিং জানতে হবে ভিডিও ইডিট করার জন্য! পরিছন্ন পরিপাটি ভাবে ভিডিও তৈরি করার জন্য ভালো রুম এবং ভালো ক্যামেরা এগুলাও দরকার। ব্যাস আর কি এগুলা সব কিছুই যদি আপনি মেইন্টেইন করতে পারেন তাহলে ইউটিউবিং করার জন্য আর কোঁথাও কোনো অসুভিদা নেই।

আর ইউটিউব এর সুভিদা, তা তো বলে শেষ করা সম্ভব না, এক কথায় বলা যায় ইউটিউব আপনাকে রাতারাতি সেলিব্রেটি বানিয়ে দিতে পারে, এছাড়াও টাকা ইনকাম করতে তো পারছেনই। ইউটিউব আপনাকে একটা ভিন্ন জগতের স্বাদ গ্রহন করাতে পারে। যা মুখে বুঝিয়ে বলা পসেবল না, এই স্বাদ টি আপনি তখনি গ্রহন করতে পারবেন যখন আপনি ইউটিউবে ভালো কিছু করবেন, এবং আপনি পপুলার হয়ে যাবেন, ঠিক তখনই এই স্বাদ টি নিতে পারবেন 😊😊

এবার আসি ব্লগিং এর সুভিদা ও অসুভিদা নিয়ে! ব্লগিং এর অসুভিদার থেকে সুভিদা একটু বেশি বলে আমার মনে হয়, তার কারন ব্লগিং করতে তেমন কিছুই লাগে না, শুধু আপনার একটি ল্যাপটপ বা একটি কম্পিউটার থাকলেই আপনি ব্লগিং করতে পারছেন।

এছাড়াও আপনি যখন যেখান থেকে খুশি ব্লগিং করতে পারবেন, যেমন আপনি কোথাও ঘুরতে গেলেন আপনার সাথে আপনার ল্যাপটপ টি থাকলেই আপনি ব্লগিং করতে পারেবন, কিন্তু ইউটিউবিং করলে আপনি এমন টা করতে পারবেন না, কেননা ভিডিও তৈরি করতে হলে আপনার পরিপূর্ণ সেটাপ এর প্রয়োজন পড়বে।

এক কথায় ব্লগিং মানেই স্বাধীনতা, আপনি স্বাধীন ভাবেই সব কিছু করে যেতে পারবেন।

এবার ব্লগিং এর কিছু অসুভিদার কথা বলা যাক, প্রথমেই বলি ব্লগিং মানে ধৈর্য, আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে, নিজের কাজ করে যেতে হবে, টাকার পিছে ভাগা চলবে না। কন্টেন্ট এর দিকে ফোকাস করতে হবে। ব্যাস এইটুকুই আর তেমন কিছু না।

পরিশেষে !

ইউটিউবিং এবং ব্লগিং দুই-ই তাদের নিজস্ব যায়গায় একদম পারফেক্ট; আপনাকে শুধু সঠিক প্লাটফম টি বেছে নিতে হবে। আপনি আপনার সম্পূর্ণ ডেডিকেশন দিয়ে কাজ করলে দুটি প্লাটফরমই আপনার জন্য ভালো। এখন পরিশেষে এটাই বলব সিধান্ত আপনার আপনি কি করবেন? আমার আপনার প্রতি পরামর্শ থাকবে এটাই আপনি যে কাজ টি করতে বেশি কম্ফোর্টেবল আপনি সেটাই করুন। ধন্যবাদ এতসময় সাথে থাকার জন্ন…টা,টা

আকাশ গোলদার

ইট বালির এই শহরে, লেখালেখি করেই শান্তি খুঁজে পাই, বা এভাবেও বলা চলে, এই লেখালেখির মাঝেই নিজেকে নিজে খুঁজে পাই... এবং তারই সুত্রপাতে এখানে লেখা, আর এই ব্লগ টি তৈরি করার মুল পারপাস হচ্ছে, ওয়েব প্রযুক্তির সর্বাধিক সুবিধা গ্রহণের ক্ষেত্রে আপনাকে সহায়তা করা! এবং টেকনোলজির জটিল টার্ম গুলো আপনার সামনে সহজ ভাবে উপস্থাপন করা…

Add comment

Secured By miniOrange